যে কোন মেয়ের যে জায়গাটিতে স্পর্শ করলেই উত্তেজনায় গাগল হয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলবেই ১০০ % !

১. ঘাড়ের পিছন দিকে:মেয়েদের শরীরে এটাই সবচেয়ে সেক্সুয়ালি টার্নিং অন এরিয়া। ছেলেরা কিন্তু অনেকসময় এই অংশটা এড়িয়ে যায়। কিন্তু শুধু এখানে স্পর্শ করেও একজন মহিলাকে দ্রুত উত্তেজিত সম্ভব। একজন মেয়ে যখন সামান্য টার্ন অন থাকে তখন তার পিছন দিকের চুল সরিয়ে ঘাড়ে হাত বুলিয়ে দেখুন। আস্তে আস্তে কিস করুন। দেখবেন আপনার সঙ্গিনী পাগল হয়ে যাবে। সামান্য লিক করুন, সুড়সুড়ি দিন। দেখবেন আপনার সঙ্গিনী উত্তেজিত হয়ে পড়েছেন।

২. কান:কানে হালকা স্পর্শ, চুম্বন অনেক বেশি ‘সেক্সুয়ালি অ্যাট্রাক্টেড’ করে দেয় মেয়েদের। কানের উপর আস্তে আস্তে নিঃশ্বাস ফেললে পাগল হয়ে পড়বে আপনার সঙ্গিনী। হালকা কামড় দিতে পারেন কানের লতিতে। লিক করতে পারেন কানের চার পাশে যে কোন জায়গায়। কিন্তু কানের ছিদ্রে নয়, এটি মেয়েদের জন্যে একটা টার্ন অফ।৩. উরু বা থাই:মেয়েদের দ্রুত উত্তেজিত করত তিন নম্বরটির পয়েন্টটির জুড়ি মেলা ভার। সঙ্গিনীর উরুর সফট স্পটে স্পর্শ করুন। দেখবেন সে কি করে।

screenshot_4-310x165

৪. হাতের তালু ও পায়ের পাতা:হাত দিয়ে প্রতি মুহূর্ত স্পর্শ করছেন, কিন্তু তার হাতেই যে লুকিয়ে আছে অসংখ্য সেক্সুয়াল ফিলিংস। সঙ্গিনীর হাতের উপর নিজের আঙুলগুলি বোলাতে থাকুন, সুড়সুড়ি দিন। এটিই যেন তাঁকে
পরবর্তী সেক্সুয়াল অ্যাক্টিভিটিরই মেসেজ দেবে। দেখবেন সেও সাড়া দেবে। টার্ন অন করবে আপনার সঙ্গিনীকে।
৫. পিঠ:পিঠ, বিশেষ করে পিঠের নিচে, কোমরের দিকের অংশটাতে স্পর্শ ও আদর চায় মেয়েরা। মেরুদন্ড বরাবর চুমু দিতে দিতে নিচে নেমে যান। তাঁর সেক্স করার মুড আরও বাড়বেই।একটু বেশি যত্নশীল হন।
এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ‘সুপারড্রাগ’-এর সারা বোলওয়ারসন বলেন, ‘আমরা একটি ভোটের ব্যবস্থা করেছিলাম। সেই ভোটের ফলের ভিত্তিতে আমরা জরিপটি চালাই। তাতে দেখা গিয়েছে, নিজেদেরকে আকর্ষণীয় দেখাতে কী কী করতে হবে, সেটা নারীরাই সবথেকে ভালো বোঝেন। কিন্তু সাধারণত নারীরা সর্বদা সে সব করেন না। সপ্তাহে যে কোনো একটি বিশেষ দিনে তাঁরা সেই সব পন্থা নেন। এবং সেটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শনিবার।

ঠিক এই ভাবে যোনীর মধ্যে লিঙ্গ প্রবেশ করালে মেয়েরা বেশি তৃপ্তি পায় || (দেখুন ভিডিওতে)

(Visited 1 times, 1 visits today)

Comments

comments